Dear Diary,
I am approaching to write here as like I used to write in my daily diary. That’s interesting. I thought I would not able to write as this is damn public. But It is me who made myself astonished eventually.
একটা ব্যাপার অবশ্য নোটিশেবল, কিছুটা রাখডাক করে লিখার কারনে লিখা গুলো অন্যরুপ পাচ্ছে যার ভিতরে তৈরি হচ্ছে Fuzziness. যারা পড়বে তারা বেশির ভাগই বুঝবে না। কেউ কেউ দুই একটা ওয়ার্ডের ইউজ থেকে স্ট্রেইট ফরোয়ার্ড মিনিং বের করতে চাইবে। তারপর হয়তো বলবে Something fishy অথবা মেজাজ খারাপ করবে। খিক খিক

Well, though I made if public but I also don’t expect everyone to read my every posts. I made some categories, people should follow নির্বাচিত লেখা টাইপ পোস্ট গুলো।
However, that’s their matter.

মাঝে মাঝে তব দেখা পাই, চিরদিন কেন পাই না।
———ঠাকুর বাবাজি একটা জিনিস ছিলো। গানটা মাথার ভিতরে চরকির লাহান ঘুরছে।

লাইফে শালা অনেক কিছুই করার ইচ্ছা ছিলো। করলাম কই? পি এইচ ডি করুম, এমন স্ট্রং কোন ডিটারমিনেশন ছিলো না। স্ট্রং ডিটারমিনেশন কি ছিলো?
কিচ্ছু খুইজা পাইতাছি না।

রাত ২ঃ৩০

“তখনও আমার সময় আসে নি,
আমি তখনও তোমার মাঝে হারাইনি
সত্যিই আমি হারাইনি,

হয়ত হারাতে চেয়েছিলাম
মধ্য দুপুরে ছায়া ঢাকা ঘরে একবিন্দু আলো হয়ে,
হারাতে চেয়েছিলাম
বিশাল সমুদ্রের মাঝে এককণা শ্বেত সুভ্র তুষার হয়ে।

হয়ত আমি সত্যিই তোমায় ভালবেসেছিলাম,

তবে তুমি ছিলে শহরের উজ্জ্বলতম নক্ষত্র,
শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ নিস্কলঙ্কতা।
আমি তোমায় খুঁজেছি সমস্ত শহরে;
কিন্তু তোমায় পাই নি,
সেই উজ্জ্বলতম নক্ষত্রটিকে ছুঁয়ে দেখতে পারি নি;
তোমায় খুঁজতে খুঁজতে আমি বারবার হারিয়ে যাই অসীম আঁধারে……”

একখানা কুইশ্চেন মাথার মধ্যে শুধু ঘুরতেছে আর ঘুরতেছে, আইচ্ছা কেউ কইবার পারবেন – গড বাবাজি এত প্রেইজ বা প্রশংসা চায় কেনো? প্রশংসা নিয়ে তার কি লাভ? প্রশংসা তখনই মিনিংফুল যখন কম্পারিজন বা তুলনা থাকবে। তুলনায় সে ভালো, দারুন, শক্তিশালী, দয়াময় তাই নমো নমো…
কিন্তু হেতের নাকি কম্পারিজন, সমকক্ষ, কাছাকাছি, একই ধরনের কেউই নাই। বিরাট এক্কা সে। তয়, এত প্রশংসা কিল্লায়? কারে দেখানোর জন্য এতো প্রশংসা কুড়ায় সে? এই কুইশ্চেন খানা কয়েকজনকে করেছি। উত্তর দেবার পারে নাই।

যাই, নমো নমো করতে করতে ঘুমাই, নাইলে রাইতে সাপ পাঠাবে নে সে…

  

FB তে মন্তব্য করতে এখানে লিখুন (ব্লগে করতে নিচে) :

4 Responses to Thought Provoking.

  • Anonymous says:

    কবতে খানা কে লিখিচে? ? আফনেই নি? ? ভালাইত . . . . .রবি দাদায় কোনটা যে নিজে লিখিচে আর কোনটা যে আমদানি করিছে বোঝা মুশকিল :!:

    .গড লইয়া মাতামাতি করন মানা আছে , মাথা নস্ট হই যাবেনি :idea:

    • Fida Hasan says:

      হ, মানা আছে দেইখা গুগুলে সবচেয়ে বেশি পর্ন সাইট গুলো হিট পরে মুসলিম কান্ট্রি থেকে। আর মাশাল্লাহ তার মইদ্দে ফাকিস্তান সব্বার আগে। মানা আছে দেখেই বোরকা পইড়া থাকে রমনীরা, আহা কি জিনিস তাই তারা পুরুষের চোখে(আসলে কিছুই না)। হুদাই।
      মানা থাকলে তাই হয় অসাধারন আর মানা না থাকলে স্বাভাবিক হয়। গড মামার ও স্বাভাবিক ভাবেই সহঃবস্থানে থাকা উচিত। তাই না? তাই ভেঙ্গে ফেলো অই মানার দেওয়াল

      কবিতা টা কি পছন্দ হয়েছে? রবি ছিলো রাজপুত্তর, ছিলো কৃষ্ণ তাই তার ভুল ভুল নয়, লীলাখেলা সাধারন খেলা নয়।

  • Anonymous says:

    গড আসলে এমন ই একজন যিনি তার অস্তিত্ব বোঝানোর জন্য যেমন
    অনেক নিদর্শন রেখেছেন তেমনি তার অস্তিত্বকে অস্বীকার করার ও সমান
    নিদর্শন রেখেছেন । তাঁকে বিশ্বাস করাটা তাই পুরোপুরি মানুষের হাতে ।
    তাই মানুষ হয়ে গেছে আবার তিন ভাগ , একভাগ পুরোপুরি বিশ্বাসী । একভাগ
    পুরোপুরি অবিশ্বাসী আর এক ভাগ দোটানায় থাকে ।
    প্রশংসা আসলে উনি কাউকে দেখানোর জন্য চান না ।
    আমরা প্রশংসা করতে পারি কিনা সেটা দেখেন ।
    এই প্রসংশা চাওয়াটা বিশ্বাসের পরীক্ষা কিংবা প্রমান বলতে পারেন ।
    উনি যেহেতু অন্তর্যামী তাই বোধহয় বিশ্বাসীরা প্রশংসার মাধ্যমে ডকুমেন্টস রাখছে মাত্র ।

    • Fida Hasan says:

      বিশ্বের অর্ধশিক্ষিত আর অশিক্ষিতদের পাল্লাই ভারি। যারা সত্য খুজে ফিরছে তাদের কাছে তিনি অধরা…! হাহ্‌
      দেখক্‌…হইছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

 

Mountain View
নিচের Button গুলো Click করে কানেকটেড থাকতে পারো।
April 2019
S M T W T F S
« May    
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930